ফিচার বাংলাদেশ সর্বশেষ তথ্য-প্রযুক্তি

আবার সচল হচ্ছে লালমনিরহাট বিমানবন্দর

আবার সচল হচ্ছে লালমনিরহাট বিমানবন্দর

পাঁচ যুগ ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকার পর আবার সচল হচ্ছে লালমনিরহাট বিমানবন্দর। মঙ্গলবার বিকেলে বিমান বাহিনীর দুইটি ফিক্সড উইং উড়োজাহাজের পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন ও অবতরণ করানো হয়েছে এই বিমানবন্দরে।

বুধবার বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত এ বিমানবন্দর পরিদর্শনে আসবেন বলে জানা গেছে।

লালমনিরহাট বিমান বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, বিমানবন্দরটি চালু করার জন্য বিমান বাহিনীর নিজস্ব একটি টিম পর্যাবেক্ষণ শুরু করেছে। মঙ্গলবার বিকেলে টিমটি লালমনিরহাট বিমান বন্দরের রানওয়ে, আকাশসীমা, অফিস কক্ষের জায়গা পরিদর্শন করেন।

জানা গেছে, সদর উপজেলার মহেন্দনগর ও হারাটি ইউনিয়নের এক হাজার ১৬৬ একর জমি অধিগ্রহণ করে ১৯৩১ সালে এ বিমান ঘাঁটি তৈরি করে তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার। বিশ্বযুদ্ধের সময় মিত্রবাহিনী এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম এ বিমানবন্দরটি ব্যবহার করে। ১৯৪৫ সালে যুদ্ধ শেষ হওয়ার পর এটি অব্যবহৃত হিসেবে জৌলুস হারাতে বসে। তবে ১৯৫৮ সালে স্বল্পপরিসরে বিমান সার্ভিস চালু হলেও তা বেশিদিন আলোর মুখ দেখেনি।

স্থানীয়রা মনে করেন, বিমানবন্দরটি চালু হলে রংপুর অঞ্চলে অর্থনৈতিক বিপ্লব ঘটবে। সুযোগ তৈরি হবে নতুন নতুন ব্যবসা-বাণিজ্যের। যোগাযোগের ক্ষেত্রেও এক নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে। ভারতের সেভেন সিস্টার হিসেবে পরিচিত সাত রাজ্যসহ আশপাশের আরও কয়েকটি রাজ্য, নেপাল এবং ভুটানের সঙ্গে বাংলাদেশের উপ-আঞ্চলিক যোগাযোগ তৈরির একটা অন্যতম মাধ্যম হতে পারে লালমনিরহাট বিমানবন্দর।

এ বিষয়ে লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক সফিউল আরিফ বলেন, সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য বিমান বাহিনীর নিজস্ব বিমান চলাচল শুরু করছে। পর্যাবেক্ষণ চলছে, খুব দ্রুত চালু হবে বলে আশা করছি।

Comments