ফিচার বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সর্বশেষ জীবন-শিল্প

এখনো নিখোঁজ ৬ বাংলাদেশি

এখনো নিখোঁজ ৬ বাংলাদেশি

অবৈধ পথে লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরের তিউনিসিয়া উপকূলে নৌকা ডুবে প্রায় ৬০ জন অভিবাসীর একটি দল মারা গেছে। এর মধ্যে প্রায় ৩৭ জন বাংলাদেশি ছিলেন। শুক্রবারের এই দুর্ঘটনায় এখনো ৬ জনের খোঁজ মিলছে না। এর মধ্যে সিলেটের ৪ ও মৌলভীবাজারের ২ জন রয়েছেন।

নিখোঁজ হওয়া ব্যক্তিরা হলেন- সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের আব্দুল আজিজ, আহম্মেদ হোসেন, লিটন শিকদার ও আফজাল মাহমুদ। বাকি দুজন মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার হাফিজ আহসান হাবিব ও কামরান আহমেদ।

নিখোঁজদের পরিবারের সদস্যরা বলছে, নৌকাডুবির ঘটনায় উদ্ধার হওয়া বেলাল নামে একজন ফোন করে তাদের এ তথ্য দিয়েছে।

লিবিয়ার বাংলাদেশ মিশন জানিয়েছে, ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে বাংলাদেশি মারা যাওয়ার ঘটনাটি তারা জানেন। তবে ওই ঘটনায় কতজন বাংলাদেশি ছিল এবং কতজন বাংলাদেশি মারা গেছেন এই বিষয়ে তাদের কাছে নিশ্চিত তথ্য নেই।

প্রকৃত ঘটনা জানতে এবং বাংলাদেশিদের উদ্ধার করতে মিশনের পক্ষ থেকে তিউনিসিয়া কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ চলছে এবং সেখানে যাওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

তবে লিবিয়াতে যুদ্ধ চলায় তিউনিশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে বলে মিশন থেকে জানানো হয়।

জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক অভিবাসী বিষয়ক সংগঠন জানায়, ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে যাওয়ার ওই ঘটনায় শনিবার তিউনিসিয়ার জেলেরা ১৬ জনকে জীবিত উদ্ধার করে। যার মধ্যে ১৪ জন বাংলাদেশি রয়েছে। বাকিদের সন্ধানে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

রাজধানী তিউনিস থেকে ৭৪ কিলোমিটার দক্ষিণের সাফাক্স শহরের উপকূলে শরণার্থীদের নিয়ে নৌকাটি ডুবে যায়। এসব অভিবাসী সাব-সাহারা আফ্রিকা থেকে এসেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এদিকে নিহত বাংলাদেশিদের মধ্যে চারজনের বাড়ি সিলেট বলে জানা গিয়েছে। এরা হলেন, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার কটালপুর এলাকার মুয়িদ পুর গ্রামের হারুন মিয়ার ছেলে আব্দুল আজিজ (২৫)। একই গ্রামের মন্টু মিয়ার ছেলে আহমদ (২৪) এবং সিরাজ মিয়ার ছেলে লিটন (২৪)। এ ঘটনায় ফেঞ্চুগঞ্জের দিনপুর গ্রামের আরেকজন নিহত হয়েছে। তার পরিচয় জানা যায় নি।

নিহত আজিজের ভাই মফিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শনিবার বেলা ৩ টার দিকে তিউনিসিয়া উপকুল থেকে বেঁচে যাওয়া তার চাচা মুয়িদপুর গ্রামের দিলাল ফোন করে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

Comments