ফিচার বাংলাদেশ সর্বশেষ মতামত অন্যান্য

গজমহল পার্ক এখন খেলার মাঠ

গজমহল পার্ক এখন খেলার মাঠ

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের অধীনে ২৬টি পার্ক রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে এসব পার্ক রক্ষণাবেক্ষণ ও সংস্কার না করায় এগুলোর এখন করুণ অবস্থা। ঢাকা শহরে অবহেলিত যতগুলো পার্ক রয়েছে এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘গজমহল পার্ক’।

পার্কটি পুরান ঢাকার হাজারীবাগের গজমহল ট্যানারি উচ্চ বিদ্যালয়ের পূর্ব পাশে অবস্থিত। পার্কটি দেখলে বুঝার উপায়ই নেই যে এটা একটা পার্ক। অযত্ন আর অবহেলায় কালের বিবর্তনে পার্কটির সৌন্দর্য একেবারে বিলীন হয়ে গেছে।

পার্ক বলতে যা বুঝায় এর বিন্দুমাত্র ছোঁয়া নেই এ পার্কে। পার্কটি দেখতে মনে হয় এটা একটা মরুভূমি। চারদিকে শুধু বালুকণা ছাড়া আর কিছুই দেখা যায় না। বর্তমানে পার্কটি খেলার মাঠ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

সরেজমিন দেখা যায়, পার্কের চারপাশে দেয়ালঘেঁষে গড়ে উঠেছে ছোট ছোট চায়ের দোকান আর রিকশা-ভ্যান গাড়ি রাখার গ্যারেজ। পার্কের ভেতর রাখা হচ্ছে লেগুনা। পার্কের উত্তর দক্ষিণে রয়েছে প্রবেশের দুটি লোহার গেট।

এককথায় অযত্ন-অবহেলায় আর রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে পার্কটি এখন বিলুপ্ত প্রায়। পার্কটি সম্পূর্ণ উন্মুক্ত থাকায় দিনে রাতে ২৪ ঘণ্টা খেলাধুলা করে থাকে স্থানীয়রা। পার্কটি গজমহল ট্যানারি উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে থাকায় বিদ্যালয়ের পিটি ও খেলাধুলা করা হয় এ পার্কটিতে।

পাশাপাশি স্থানীয় লোকজনের বিয়ে, অনুষ্ঠান, ওয়াজ-মাহফিল, রাজনৈতিক সভা, মিছিল, সমাবেশসহ দুই ঈদের জামাত ও জানাজার কাজ সম্পন্ন হয় এ পার্কটিতে। কয়েক বছর আগেও সবুজ গাছগাছালি ও শ্যামল ছায়ায় ঘেরা ছিল এ পার্কটি।

শিশুদের খেলাধুলার জন্য ছিল দোলনা, সি­পারসহ নানা খেলাধুলার উপকরণ। বসা ও বিশ্রামের জন্য ছিল বেঞ্চি। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে পার্ক থেকে সবকিছু হারিয়ে গেছে। পার্কের অবশিষ্ট বলতে আর কিছুই নেই।

১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ সেলিম এ ব্যাপারে যুগান্তরকে বলেন, বর্তমান সরকার হাজারীবাগের জনগণের কথা ভেবে ট্যানারি সাভারে স্থানান্তরিত করেছে। হাজারীবাগকে একটি আধুনিক এলাকা হিসেবে গড়ে তোলা হবে।

একটি আধুনিক এলাকা বলতে যা বুঝায় সবই থাকবে এ হাজারীবাগে। হাজারীবাগের গজমহল পার্কটি নতুন করে সংস্কার করা হবে। একে এককথায় একটি আধুনিক পার্ক হিসেবে গড়ে তোলা হবে। অতি শিগগিরই পার্কের সংস্কার কাজে হাত দেয়া হবে।

Comments