ফিচার আন্তর্জাতিক সর্বশেষ তথ্য-প্রযুক্তি মতামত

ঘড়ির কাঁটা আর নড়চড় করবে না ইইউ

ঘড়ির কাঁটা আর নড়চড় করবে না ইইউ

দিনের আলো সংরক্ষণের জন্য বছরে দুবার ঘড়ির কাঁটা এগোনো-পেছানোর বিষয়টি স্থগিতের ব্যাপার অবশেষে ইউরোপীয় সংসদে পাস হয়েছে। মঙ্গলবার পার্লামেন্টে এই বিষয়ে ভোটাভুটি হয়।

তবে আরো এক বছর এ ‘ঝামেলা' পোহাতে হবে ইউরোপবাসীর। কারণ, ২০২১ নাগাদ তা কার্যকর হবে৷ তবে কোনো ইউরোপীয় দেশ যদি চায়, তাহলে বছরে দু'বার করে ঘড়ির সময় বদলাতে পারে। অথবা কেউ চাইলে গ্রীষ্মের সময়টিকেই চিরস্থায়ী করে রাখতে পারে, অথবা কেউ চাইলে শীতের।

তবে ইইউ’র ২৮টি দেশের সবাইকেই নিজেদের সিদ্ধান্ত জানাতে হবে ২০২০ সালের এপ্রিলের মধ্যে। তখন ব্লকটির নির্বাহী বিষয়গুলোর সময়কাল নির্ধারিত করা হবে যেন তা ইইউ'র সিঙ্গেল মার্কেটের কার্যকারিতায় বাধা হয়ে না দাঁড়ায়।

গত বছর ইউরোপীয় কমিশন ঘড়ির কাঁটা পরিবর্তন বন্ধের বিষয়টি প্রস্তাব করে। মূলত ইউরোপজুড়ে অধিবাসীদের ওপর করা এক জরিপে মানুষের মতামতের উপর ভিত্তি করেই এই প্রস্তাব করা হয়। তবে আগামী মে মাসে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট নির্বাচনের আগে এই বিষয়ে এখনই ভোটের সমালোচনাও করছেন অনেকে।

এছাড়া সমালোচনা আছে, জার্মানির নাগরিকদের চাওয়া অন্য দেশগুলোর ওপর চাপিয়ে দেয়ারও। কারণ, গত বছরের জরিপে অংশ নেয়া ৪৬ লাখ মানুষের মধ্যে ৩০ লাখ ছিল জার্মানির। এদিকে, রাশিয়া ২০১১ সালে তাদের কেই চিরস্থায়ী হিসেবে বেছে নিয়েছিল। তবে তিন বছর পর তারা শীতকালীন সময়ে চিরস্থায়ীভাবে ফিরে যায়। ঘড়ির কাঁটা পরিবর্তন ব্যবস্থা চালু হয়েছিল মূলত দিনের আলো বেশি কাজে লাগানোর মাধ্যমে বিদ্যুতের চাহিদা কমানোর জন্য। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে একে ‘খাজনার চেয়ে বাজনা বেশি' বলে অনেকে সমালোচনা করেছেন।

Comments