ক্যাম্পাস সর্বশেষ

জরুরি বৈঠকে বসেছেন ভিকারুননিসার শিক্ষকরা

জরুরি বৈঠকে বসেছেন ভিকারুননিসার শিক্ষকরা

ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি অধিকারীর (১৫) আত্মহত্যার পর উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জরুরি বৈঠকে বসেছেন ভিকারুননিসা নূন স্কুলের শিক্ষকরা।

এদিকে আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলার পর মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

বুধবার (৫ ডিসেম্বর) রাতে রাজধানীর উত্তরা থেকে ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের এই শিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়।

সোমবার দুপুরে অরিত্রির আত্মহননের পর মঙ্গলবার থেকে উত্তাল দেশের অন্যতম সেরা এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। আটক শিক্ষকের মুক্তি ও নতুন কাউকে গ্রেফতার না করা-এসব বিষয়ে আলোচনা হতে পারে বৈঠকে।

জানা গেছে, দুই শতাধিক শিক্ষক বৈঠকে উপস্থিত আছেন। বেইলি রোডে প্রতিষ্ঠানটির মূল ক্যাম্পাসে এ বৈঠক চলছে। আজিমপুর, বসুন্ধরা ও ধানমন্ডি শাখার শিক্ষকরাও বৈঠকে যোগ দেবেন।

বিভিন্ন শাখা মিলে এ প্রতিষ্ঠানে আট শতাধিক শিক্ষক রয়েছেন।

খুরশিদ জাহান মালা নামের এক শিক্ষক বলছেন, আমরা নানভাবে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের দ্বারা লাঞ্ছিত হচ্ছি। আমরা শিক্ষার্থীদের মানুষ করি অথচ আমাদের হত্যাকারী বলে ধিক্কার দেয়া হচ্ছে। ঘর-সংসার রেখে আমরা শিক্ষার্থীদের মানুষ করার দায়িত্ব পালন করি।

উল্লেখ্য, সোমবার (২ ডিসেম্বর) পরীক্ষায় নকল করে ধরা পড়েন অরিত্রী অধিকারী নামে ভিকারুননিসার নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী। দুপুরে ঢাকার শান্তিনগরের বাসায় নিজের ঘরে দরজা বন্ধ করে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করে সে।

স্বজনদের দাবি, ওই ঘটনার পর অরিত্রীর বাবা-মাকে ডেকে নিয়ে ‘অপমান করেছিলেন’ অধ্যক্ষ। সেই কারণে ওই কিশোরী আত্মহত্যা করে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেয়া হলে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে চিকিৎসকরা অরিত্রিকে মৃত ঘোষণা করেন। ওই ছাত্রীর গ্রামের বাড়ি বরগুনা সদরে। অরিত্রির বাবা দিলীপ কুমার একজন সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী।

Comments