ফিচার বাংলাদেশ সর্বশেষ

তারেক-জামায়াতে ডুবেছে বিএনপি

তারেক-জামায়াতে ডুবেছে বিএনপি

জাতীয় সংসদ নির্বাচন ভরাডুবি হয়েছে বিএনপির। এমন ‘অপ্রত্যাশিত’ হারের কারণ অনুসন্ধানে নেমেছেন বিএনপির নেতারা। এই হারের পেছনে অনেকাংশে জামায়াত ও দলটির কো-চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দায়ী করছেন অনেকেই। বাংলাদেশ রাজনীতিক সংষ্কৃতি মেনেই এই হারের জন্য নানান কারচুপির অভিযোগ করছে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট। তবে অভ্যন্তরীণ সূত্র মতে এর বাইরেও নিজেদের ব্যর্থতা বিশ্লেষণ করছে দলটি।

রাজনীতিক বিশ্লেষকদের মতে, মূলত তারেক ও জামায়াতেই ডুবেছে বিএনপি। ঐক্যফ্রন্ট গঠনের সময় ড. কামাল হোসেনরা শর্ত দিয়েছিলেন তারেক রহমান এই জোটে কোনোভাবে নাক গলাবেন না। যদিও শেষ পর্যন্ত জোটে তারেকের অনুপ্রবেশ ঘটেছিল। যা নিয়ে ক্ষুব্ধ ছিলেন ড. কামাল হোসেন।

তারেককে নিয়ে ক্ষুব্ধ ছিলেন বিএনপির শীর্ষ নেতারাও। যার মূল কারণ মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার বোর্ডে হঠাৎই তারেকের অনুপস্থিতি। তারেকের হস্তক্ষেপে মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে শীর্ষ নেতাদের নিয়ন্ত্রণ ছিল না বললেই চলে। এ নিয়ে মনোক্ষুণ্ন ছিলেন দলটির সিনিয়র নেতারা। লন্ডন থেকে মনোনয়নের ফলে স্থানীয়ভাবে বিএনপির সক্রিয় নেতারা মনোনয়ন বঞ্চিত হন। এ নিয়ে দলের ভেতরেও দেখা গিয়েছিল ক্ষোভের আগুন। গুলশান ও নয়াপল্টন অবরুদ্ধ করেছিলেন মনোনয়ন বঞ্চিতরা। এমনকি দলের শীর্ষ কয়েকজন নেতা বিভিন্ন সময় কর্মীদের তোপের মুখেও পড়েন।

এছাড়া ঐক্যফ্রন্ট গঠনের শুরুতে ড. কামাল হোসেন শর্ত দিয়েছিলেন এই জোটে ২০ দল ও জামায়াত থাকবে না। কিন্তু সে কথাও রাখেনি বিএনপি। ২৫ জামায়াত নেতাকে মনোনয়ন দেয় দলটি। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন ড. কামাল নিজেও। একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে তিনি জানিয়েছিলেন, জামায়াত থাকবে জানলে তিনি ঐক্যফ্রন্টে আসতেন না।

ড. কামাল হোসেন বলেন, দুঃখের সঙ্গে আমাকে বলতে হচ্ছে যে, জামায়াত নেতাদের মনোনয়ন দেওয়াটা বোকামি। আমি লিখিত দিয়েছি যে, জামায়াতকে কোনো সমর্থন দেওয়া এবং ধর্ম, মৌলবাদ, চরমপন্থাকে সামনে আনা যাবে না। যদি জানতাম জামায়াত নেতারা বিএনপির প্রতীকে নির্বাচন করবেন, তাহলে আমি এতে যোগ দিতাম না। কিন্তু ভবিষ্যত্ সরকারে যদি জামায়াত নেতাদের কোনো ভূমিকা থাকে, তাহলে আমি তাদের সঙ্গে একদিনও থাকবো না। ভোটের একদিন আগে ড. কামালের এই বার্তা স্বভাবতই ভোটারদের প্রভাবিত করেছিল বলে ধারণা রাজনীতিক বিশ্লেষকদের।

এছাড়া বঙ্গবন্ধুর একজন খুনির স্ত্রীকে মনোনয়ন দেওয়ায় বিএনপির ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন ড. কামাল হোসেন। বঙ্গবন্ধুর খুনি মেজর খায়রুজজামান বউ ও ২০-দলীয় জোটের পিপলস পার্টির রিটা নেতা রিটা রহমানকে রংপুর-৩ আসনে সমর্থন দেয় বিএনপি। এ নিয়ে বিএনপির নেতাদের নিজের অসন্তোষের কথা জানিয়েছিলেন ড. কামাল হোসেন।

সূত্রঃ বাংলাদেশ জার্নাল

Comments