ফিচার বাংলাদেশ সর্বশেষ

বাবার ‘আজরাইল’ ছেলে, রক্ষা পেতে প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ

বাবার ‘আজরাইল’ ছেলে, রক্ষা পেতে প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ

শাহজাহান আলী একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা। থাকেন রাজধানীর মিরপুরে। ৭৭ বছর বয়সী শাহজাহানের রয়েছে তিন সন্তান। প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর পর বছর তিনেক আগে দ্বিতীয় বিয়ে করেন তিনি। এর পর থেকে তার ওপর নেমে আসে বর্বরতা।

মিরপুরে আড়াই কাঠার একটু বেশি জায়গায় তৈরি করেছিলেন ছয়তলা বাড়ি। দ্বিতীয় তলায় থাকেন তিনি। অন্যগুলো ভাড়া দেয়া। কিন্তু সেই ভাড়ার টাকা তার কপালে জোটে না। তুলে নিয়ে যান ছেলে মেজবাহ উদ্দিন।

বাবার সম্পদ নিয়েই থামেননি ছেলে, নিয়মিত নির্যাতন করেন বাবাকে। শাহজাহান আলীর একটিই প্রশ্ন, ‘আমি সবকিছুই বাদ দিলাম। শুধু একটাই প্রশ্ন, শুধু বলেন, ছেলে আমাকে মারবে কেন? গায়ে হাত তুলবে কেন?’

সম্প্রতি শাহজাহান আলী ঢাকার একটি প্রভাবশালী দৈনিকের অফিসে এসে কাঁদতে কাঁদতে নিজের অভিযোগ জানান। তাঁর অভিযোগ, ছেলে মেজবাহ উদ্দিন প্রায়ই তাঁকে মারধর করেন। এই বয়সে শরীর এবং মনে সে মার সহ্য করতে পারছেন না। ছেলে কেন মারবে-এর বিচার চান তিনি।

শাহজাহান আলী বলেন, ‘ছেলে আমারে রাস্তাতেও মারছে। ঘুরে ঘুরে লাথি মারতে থাকে। হাতের কবজি ভেঙে দিছে। কিন্তু এ কথা কাকে বলব? চিন্তা করে অনেক দিন তা গোপন রাখছি। এখন মানসম্মান, লজ্জার কথা চিন্তা করি না। জীবনের চেয়ে মানসম্মান তো বড় না।’

শাহজাহান আলী বলেন, ‘ছেলে এখন আমার শত্রু। সব সময় পেরেশানিতে রাখে। ও বলেই দিয়েছে—আমার মৃত্যু নাকি তার হাতে।’


ছেলের এই নির্যাতন থেকে বাঁচতে শাহজাহান আলী, থানায় জিডি করেছেন, আদালতে মামলাও করেছেন। কিন্তু এখনো নিরাপত্তা পাননি। ফলে তিনি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় বরাবরও ঘটনার বর্ণনা দিয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন। সেখানে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এ বিষয়ে বক্তব্য নেওয়ার জন্য গণমাধ্যমের পক্ষ থেকে মেজবাহ উদ্দিনকে অসংখ্যবার ফোন দেওয়া হলেও তিনি ফোন ধরেননি। পরে তিনি তাঁর দুটো মুঠোফোনই বন্ধ করে দেন।

সূত্র: প্রথম আলো।

Comments