ফিচার বাংলাদেশ ক্যাম্পাস সর্বশেষ আইন-আদালত শিক্ষা

বিক্ষোভে উত্তাল বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়

বিক্ষোভে উত্তাল বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উত্তাল হয়ে ওঠছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়। সাধারণ শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বলার প্রতিবাদে আজ বুধবার (২৭ মার্চ) সকাল থেকে শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে বিক্ষোভ করেন। শিক্ষার্থীরা উপাচার্যকে ওই বক্তব্য প্রত্যাহার করে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানান। ক্ষমা না চাওয়া পর্যন্ত ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনেরও ঘোষণা দেন তারা। একই সঙ্গে তাদের অন্য দাবিগুলোও মেনে নেয়ার দাবি জানান।

গতকাল শিক্ষার্থীদের বাদ দিয়ে স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস উদযাপনের অভিযোগ ওঠে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে। শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সাধারণ শিক্ষার্থীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন ভিসি। এর প্রতিবাদে গতকাল সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বিক্ষোভ করেন। পাশাপাশি আজ থেকে লাগাতার আন্দোলনের ডাক দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

অন্যদিকে ভিসি ড. ইমামুল হক দাবি করেন, মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সকালে জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলনের অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। শিক্ষার্থীদের নিয়ে দিনব্যাপী নানা অনুষ্ঠান উদযাপন করা হয়। বিকেলে শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তা এবং প্রশাসন, রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও সাংবাদিকদের নিয়ে চা চক্র ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এদিকে দুপুরে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি (বিইউডিএস) আয়োজিত আন্তঃবিভাগ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

তিনি বলেন, আজকের এই স্বাধীনতা দিবসে যারা এমন কাজ (আন্দোলন) করে, তারা রাজাকারের বাচ্চা ছাড়া কিছুই না। আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি, এরা রাজাকারের বাচ্চা, স্বাধীনতা বিরোধী ছাড়া এই কাজ কেউ করতে পারে না। এ সময় তিনি ব্যথিত হৃদয়ে বলেন, তোমরা বুঝতেই পারছ, আমার এখানে (বিইউডিএস’র অনুষ্ঠানে) আসার ইচ্ছা ছিল না; তবুও এলাম। তোমরা যা করছ তা একজন শিক্ষক হিসেবে আমার কাছে কাম্য নয়। তোমরা নিজেদের শিক্ষকের সমান মনে কর।

ভিসি বলেন, যারা আন্দোলনের নামে স্বাধীনতা দিবসের মতো জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠান বানচাল করার ষড়যন্ত্র করেছিল তাদের রাজাকার বলা হয়েছে। তিনি অভিযোগ করেন, মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীদের বিপক্ষে অবস্থান নেয়ায় একটি কুচক্রী মহল তাদের স্বার্থের জন্য ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। কোটা বিরোধী আন্দোলনের সময় তারা সুবিধা করতে না পেরে তার বিরুদ্ধে এসব ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে।

Comments